লুই কান: আলোর স্থপতি

জীবনের বিজ্ঞান

গ্রেট থিংকার্স প্রজেক্ট থেকে পরীক্ষামূলকভাবে: আসমা সুলতানা ও কাজী মাহবুব হাসান

Salk Institute at the Vernal Equinox

আধুনিক স্থাপত্য সত্যিকারভাবে বহু নতুন আর যুগান্তকারী সৃষ্টির দাবী করতে পারে: ঝলমলে, আকাশ ছোঁয়া উচু দালান, ভাঁজ করা অরিগামীর মত অপেরা হাউস, কিংবা এমনকি নভোযানের মত যাদুঘর। তবে সব কিছুরই নতুনত্বের সাক্ষ্য বহন করতেহবে এমনি একটি দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহন করার ফলশ্রুতিতে স্থাপত্যকলার এই আধুনিকতাবাদভাবজড়তায় আক্রান্ত হয়, যে বিষয়গুলো কোনো একটি দালানকে সুন্দর করে তুলতো সেগুলো বেশীর ভাগই এখন পরিত্যাগ করা হয়েছে। তবে আধুনিক যুগের সেরা স্থপতিরা এইভ্রান্তিটাকে এড়িয়ে যেতে পেরেছিলেন, পুরোনো, একঘেয়ে প্রচলিত ভাবনাগুলো পরিত্যাগ করলেও সফলভাবে তারা সেই ঐতিহ্যের অর্থবহ আর সুন্দর বিষয়গুলো তাদের সৃষ্টির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করতে পেরেছিলেন। আর সম্ভবত এই ভারসাম্যটি সবচেয়ে সফলভাবে অর্জন করতে পেরেছিলেন খামখেয়ালী, আত্মভোলা এক আমেরিকান, যার নাম লুই কান (Louis Isadore Kahn(জন্ম নাম:Itze-Leib Schmuilowsky)।


View original post 885 more words

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s